ব্রেকিং নিউজ
wb_sunny

ব্রেকিং নিউজ

ফোনের ব্যাটারির চার্জ দ্রুত শেষ হওয়ার কারণ ও প্রতিকার

ফোনের ব্যাটারির চার্জ দ্রুত শেষ হওয়ার কারণ ও প্রতিকার

 

fast charging, phone slow charging problem solution, slow charging solution, how to do fast charging in android, how to enable fast charging on any android, phone charging hacks, slow charging phone, phone slow charging, slow charging, all phone charging solution, charging problem solution, fast charging phone, slow charging problem, redmi phone slow charging solution, redmi phone slow charging problem, charge your phone faster, infinix phone safe charging problem solution, ফোনের চার্জ দ্রুত শেষ হওয়ার কারণ ও সমাধান, ফোনের চার্জ দ্রুত শেষ হয়ে যায়,ফোনের ব্যাটারির চার্জ দ্রুত শেষ হয় কেন,ফোনের চার্জ দ্রুত শেষ হয়ে যায় জেনে নিন সমাধান,ফোনের ব্যাটারির চার্জ দ্রুত শেষ হওয়ার কারণ ও প্রতিকার,ফোনের চার্জ দ্রুত শেষ হয়ে যায় জেনে নিন সমাধান,ব্যাটারির চার্জ দ্রুত শেষ হওয়ার কারণ,মোবাইলের চার্জ তারাতারি শেষ হয়ে যায় কেন, যে ১০টি এ্যাপের কারনের ফোনের চার্জ দ্রুত শেষ হয়ে যায়,ফোনের চার্জ অটোমেটিক কমে যায় কেন,মোবাইলের চার্জ তাড়াতাড়ি শেষ হয়ে যায় কেন


আসা করি আপনারা সবাই অনেক ভালো আছেন। আমরা প্রায় দেখি আমাদের মাঝে একটি কমন সমস্যা সম্মুখিন হচ্ছি এবং সেটি হলো আমদের ফোনের চার্জ দ্রুত শেষ হয়ে যায়। আসলে এটির সমাধান কি আজকে এ বিষয়ে উপর দশটি ওয়ে বলবো। এই দশটি নিয়ম যদি আপনি মেন্টিক করেন তাহলে আপনার ফোনের যেই দ্রুত চার্জ শেষ হয়ে যাচ্ছে এসব বিষয়ে আপনি সমাধান পাবেন। চলুন জেনে নেই বিস্তারিত
 

ফোনের চার্জ দ্রুত শেষ হওয়ার কারণ ও সমাধান: 

ব্যাটারি অপটিমাইজেশন অপ করে রাখবের তার পাশাপাশি যদি আপনার আইকেয়ার মোড থাকে বা রেডিং মোড থাকে সেটি অন করে রাখবেন। এতে যেই বিষয়টি হবে সেটি হলো ডিসপ্লইটি একটু হলুদ হলুদ লাগবে। এই আইকেয়ার এবং রেডিং মোডটি যদি অন করা থাকে তাহলে আপনার চোখের জন্য ক্ষতি কম হবে। অবশ্যই এই কাজটি করবেন আপনাদের ফোনের এবং চোখের জন্যও উপকার হবে।
 

ফোনের ব্যাটারির চার্জ দ্রুত শেষ হয় কেন:

যেই বিষয়টি আমরা সবাই ক্লিয়ারলি যানি না। সেটি হলো আপনি যত বেশি মোবাইল ডাটার মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যাবহার করবেন তত দ্রুত আপনার ফোনের চার্জ শেষ হয়ে যাবে। কারন নেটোয়ার্ক আইসি তখন খুব প্রেশারে ব্যাবহার হয়ে থাকে। সুতরাং তখন কিছু করার থাকে না। যেহেতু আমরা বাসার বাহিরে চলে গেলে মোবাইল ডাটা ব্যাবহার করে থাকি। তখন আপনারা যেই কাজটি করবেন সেটি হলো মোবাইল ডাটার যেই সেটিং আছে সেখানে যে এরিয়াতে ত্রিজি থাকে অথবা পোরজি কম বেশি থাকে অথবা না পায় দেখা গেলো যে ক্লিয়ারলি পাচ্ছে না সে খেত্রে আপনি ত্রিজিটা সিলেক্ট করে রাখবেন। আপনি আবার অটো সিলেক্ট করে রাখবেন্না তাহলে যেটা হবে সেটি হলো সব সময় মোবাইল চেষ্টা করবে পোরজি কানেক্ট করার জন্য আবার পোরজি না পেলে ত্রিজি কানেক্ট করার জন্য। সবসময় সে চার্জ করতে থাকবে ভালো নেটোয়রর্কের জন্য। অতএব যেটা অবশ্যই ভালো নয় এবং তার পাশাপাশি আপনি যদি ওয়াই ফাই নেটোয়ার্ক ব্যাবহার না করেন তাহলে ওয়াই ফাই অফশনটি অপ করে রাখবেন। তার কারন হলো ওয়াই ফাই অপশনটি যদি অন করা থাকে তাহলে সবসময় সে খুজতে থাকে আসে পাশে কি কি রাউটার আছে। সে সব সময় চেষ্টা করে কোন রাউটারের সাথে কানেক্ট করা যায় কিনা। অথবা আপনাকে বলতে থাকে এখানে একটি রাউটার আছে তুমি চাইলে পাসওয়ার্ড দিয়ে কানেক্ট করে নিতে পারো। এজন্য আপনি এই ওয়াই ফাই অপশনটি অপি করে রাখবেন কারন আপনি যদি বুঝেন যে রাস্তা আছেন বা বাসার বাহিরে আছেন। তখনতো আপনি আর রাউটার অথবা ওয়াই ফাই করবেন না। অতএব এটি যদি আপনি অপ করে রাখেন তাহলে আপনার ফোনের চার্জ অনেক ভালো পরিমানে সেব হবে। চার্জ কম খরচ হবে।
 

ফোনের চার্জ দ্রুত শেষ হয়ে যায় জেনে নিন সমাধান:

মাল্টি টাসকিন এটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ । আমরা যখন অনেক মাল্টি টাসকিন ব্যাবহার করি। প্রত্যেকটি এপসে যখন ইন্টারনেট অন করা টাইপ এপস নিয়ে আমরা মাল্টি টাসকিন করি। যেমন মনে করি আমরা একটি গেম্স খেলি সেটা ইন্টারনেটের মাধ্যমে দেখা গেলো ফেজবুক ব্যাবহার করি তাও ইন্টারনেটের মাধ্যমে আবার ইউটিউব অথবা ইনিস্ট্রাগ্রাম এসব এপস গুলোতে অনেক ইন্টারনেট ব্যাবহার হয়। অতএব আপনাদের যদি এই এপস গুলো প্রয়োজন না থাকে তাহলে এক সাথে সবগুলো চালু করনে না। আপনি যদি মাল্টি টাসকিন করেন তার পরও এগুলো বন্ধ করে বাখবেন। কারন ভালো ফোনও কিন্ত বেগ্রাউন্ড রান করতে থাকে। একমাত্র কম দামি ফোন আছে যে বেগ্রাউন্ড কোন কাজ করেনা। ফোন যত দামি তত অনেক ইস্মার্ট। বেগ্রাউন্ডও তারা কাজ করতে থাকবে। আপনি চেষ্টা করতে থাকবেন যেই এপসটি ব্যাবহার না করবেন সাথে সাথে বন্ধ করে দিবেন। ফেজবুক, ইউটিউব, ইনিস্ট্রাগ্রাম অথবা অন্যান্য যত এপস আছে সবগুলো এক সাথে অপেন করবেন ন। একটি একটি করে অপেন করবেন যেমন একটির কাজ শেষ হয়ে গেলে আরেকটির চালু করে কাজ করবেন। এতে আপনাদের ফোনের অকে চার্জ সেব হবে।
 

যে ১০টি কারনের ফোনের চার্জ দ্রুত শেষ হয়ে যায়

এখানে দুইটি বিষয় আপনাদেরক যানাবোঃ- আপনাদের ফোনের ব্রাইটনেজ অটোমেটিক দিয়ে রাখবেন। অনেকে যে অটোমেটিক না দিয়ে মেনুয়াল দিতে। কিন্তু আপনারা অটোমেটিক দিয়ে রাখবেন তখন যেখানে আলো বেশি আছে সেখাবে সে অটোমেটিক আপনার ফোনের আলোকে একজাস্ট করে নিবে যতে আপনার চোখের কোনো সমস্যা না হয়। যখন আপনি অন্ধকারে যাবেন তখন আবার ফোনের আলো বেড়ে যাবে। ওয়েদারের সাথে সাথে আপনার ফোনের আলো পরিবর্তন হবে। আপনার চোখের কোন ক্ষতি হবে না এবং আপনার ফোনের চার্জও অনেক সেব হবে। এজন্য আপনারা ব্রাইটনেজ অপশনটি সব সময় অটোমিটিক করে দিবেন।
 

মোবাইলের চার্জ তাড়াতাড়ি শেষ হয়ে যায় কেন

তার পাশাপাশি ফোনের একটি অপশন থকে স্ক্রিন অন অপ টাইম। সেটি হলো আপনি ফোন ব্যাবহার না করলে কত দ্রুত আপনার ফোনের স্ক্রিন বন্ধ হয়ে যাবে। সেখানে অপশন থাকে ১৫সে, ৩০সে, ১মি, ২মি এবং আরো অকেন বেশি টাইমও আছে আপনারা চেষ্টা করবেন ১৫ থেকে ৩০ সেকেন্ডে দেওয়ার জন্য। করন আপনি যদি ফোন ব্যাবহার না করেন তাহলে আপনার ফোনের ডিসপ্লইটি দ্রুত বন্ধ হয়ে যাবে। আপনারা জানেন বর্তমানে ফোনের ডিসপ্লাইটি অনেক বড় হয়ে থাকে এজন্য ব্যাটারি অনেক চার্জ খেয়ে পেলে। আমাদের ফোনের ডিসপ্লাই অনেক পরিমানে চার্জ খরচ করে। এজন্য আপনারা ফোন দেখা হয়ে গেলে ফোন দ্রুত বন্ধ করে পেলবেন এত আপনার ফোনের চার্জ অনেক সেব হবে। 
 

ফোনের চার্জ অটোমেটিক কমে যায় কেন

ফোনের মধ্যে আমরা ওয়েল পেপার ব্যাবহার করি। কিন্তু লাইভ ওয়েল পেপার ব্যাবহার করে থাকি। এগুলো আমাদের ব্যাবহার করা বন্ধ করতে হবে। লাইভ ওয়েল পেপার ফোনের চার্জ তারা তারি শেষ করে এবং ব্যাটারি অনেক ডেম করে পেলে। শুধু তাই নয় আপনাদের ফোন অনেক গরম হয়ে যায়। যদি আপনি হেবি লাইভ ওয়েল পেপার ব্যাবহার করে থাকেন।
 

ফোনের ব্যাটারির চার্জ দ্রুত শেষ হওয়ার কারণ ও প্রতিকার

এটি খুব মাঝাদার সেটি হলো আপনাদের যাদের মধ্যে সুপার আমলের ডিসপ্লাই রয়েছে তারা চেষ্টা করবেন ডার্কমোড ব্যাবহার করবেন। কারন যেই এরিয়া গুঅো ডার্ক থাকে সেই এরিয়া পিক্সেল গুলো কিন্তু বন্ধ থাকে। সেগুলোর কোন কাজ করে না এত আপনার ফোনের ব্যাটারি অকে সেব হয়।
 

ফোনের ব্যাটারির চার্জ দ্রুত শেষ হওয়ার কারণ ও প্রতিকার

সাউন্ড মেনেজ মেন্ট আপনার ফোনে রিংটর এমন ভাবে দেন যেনো হাতের কাছে রাখলে রিংটনের সাউন্ড কমে যায়। অথবা আপনি রিংটন বা ব্রাইবেশন ব্যাবহার করেন কোনো সমস্যা নাই। কিন্তু আন্নেসেসারি যেই অনেক নোটিপিকেশন আছে যেমন ফেজবুকে কেউ যদি লাইক বা কমেন্ট করে তাহলে নোটিপিকেশন আসে। এইসব ধরনের নোটিপিকেশনগুলো বন্ধ করে রাখুন। এত নোটিপিকেশন আমাদের কোনো প্রয়োজন নেই। এখান থেকে আপনি অনেক চার্জ সেব করতে পারবেন তাই নয় সম্ভব হলে সেটিংসের গিয়ে নোটিপিকেশন বন্ধ করে দিন যদি আপনার কোনো প্রয়োজন না থাকে। কারন আপনার ফোনে যত বার নোটিপিকেশন আসবে তত বার আপনার ফোনের সাইন্ড হবে সাতে  ডিসপ্লাইতে আলো জ্বলবে এতে ফোনের চার্জ দ্রুত চলে যাবে। প্রয়োজন না হলে সেটিংসের নোটিপিকেশন অপশনটি বন্ধ করে রাখুন এতে আপনার ফোনের চার্জও অনেক সেব হবে।
 
লোকেশন সার্বিসটি বন্ধ রাখবেন প্রয়োজন ছাড়া অপেন করবেন না। যেইসব এপসে আপনার লোকেশন প্রয়োজন আছে সেগুলো ছাড়া অপেন করবেন না। লোকেশন অপশনটি যদি অপ করে রাখেন তাহলে আপনার ফোনের চার্জ অনেক দ্রুত চলে যাবে। লোকেশন আপডেট হতে থাকে এবং গুগোল সেটেলইটের মাধ্যমে কানেক্ট করার চেষ্টা করে এতে আপনার ফোনের ভালো চার্জ খরচ হতে থাকে। তার পাশাপাশি ফোনের ইন্টারনেটও অনেক খরচ হয়। প্রয়োজন ছাড়া আপনার ফোনের লোকেশন অপশনটি চালু করবেন না।
 
আপনার ফোনের চার্জ যখন ২০% এর নিচে চলে আসবে তখনি মোবাইলটি চার্জ দিন। আপনারা চাইলে ভেঙ্গে ভেঙ্গে মোবাইল চার্জ দিতে পারবেন যেমন মনে করেন যে ২০% থেকে ৫০% চার্জ দিলেন ফোন খুলে ব্যাবহার করেন আবার ৪০% থেকে ৮০% চার্জ দেওয়ার পর আবার ব্যাবহার করেন এত কোনো সমস্যা হবে না। কিন্তু ২০% এর নিচে চার্জ নিতে ‍দিবেন না। এতে আপনার মোবাইল ও ব্যাটারি অনেক ভালো থাকবে। এসব নিয়ম কানুন যদি আপনারা মেনে চলেন তাহলে আপনার ফোনের এবং ব্যাটারি আগের থেকে অকেন ভালো চার্বিস দিবে। 

Tags

Newsletter Signup

Sed ut perspiciatis unde omnis iste natus error sit voluptatem accusantium doloremque.

Post a Comment